search

Mango / আম

৳85.00
Tax excluded *

নুন্যতম অর্ডার  কেজি

আমরা আপনাকে ফোন করে অর্ডার কনফার্ম না হওয়া পর্যন্ত পেমেন্ট করবেন না।

Types of Mango
Quantity
Out-of-Stock

The minimum purchase order quantity for the product is 5.


redeem
By buying this product you can collect up to 8 loyalty points . Your cart will contain total 8 points that can be converted into a voucher of ৳1.60 .


  Return policy

We Do not Have Any Return Policy except if we send you wrong product.

  Ramadan Offer

Surprise gift with every purchase in this Ramadan.


ডেলিভারি সার্ভিস ফি - ৬০ টাকা (শুধু ঢাকার মধ্যে)


আমকে বলা হয় ফলের রাজা। গ্রীষ্মের এই সময়ে রসালো আম থাকে বাজারজুড়ে। জেনেনেই আম সম্পর্কে কিছু তথ্যঃ 
(বিভিন্ন মানুষের পর্যবেক্ষন থেকে পাওয়া তথ্য)

১। ফরমালিন যুক্ত আমে কক্ষনও মাছি বসে না। তাই পাকা আমে মাছির আগমন দেখলে আপনি নিশ্চিত যে আমে ফরমালিন বা কেমিক্যাল নাই।
২। আম গাছে থাকা অবস্থায় আমের শরীরে এক রকম সাদাটে ভাব থাকে। কিন্তু ফরমালিন বা অন্য রাসায়নিকে চুবানো আম হবে ঝকঝকে সুন্দর।
৩। কারবাইড বা অন্য কিছু দিয়ে পাকানো আমের শরীর হয় মোলায়েম ও দাগহীন। কেননা আমগুলো অপরিপক্ক অবস্থাতেই পেড়ে কেমিক্যাল দিয়ে পাকানো হয়। অতিরিক্ত কেমিক্যাল স্প্রে বিহীন পরিপক্ক আমের ত্বকে দাগ পড়বেই।
৪। পরিপক্ক গাছপাকা আমের ত্বকের রঙে ভিন্নতা থাকবে। গোঁড়ার দিকে গাঢ় রঙ হবে, সেটাই স্বাভাবিক। কার্বাইড দেওয়া আমের আগাগোড়া হলদেটে হয়ে যায়, কখনো কখনো বেশি দেওয়া হলে সাদাটেও হয়ে যায়।
৫। হিমসাগর, আশ্বিনা, ছাড়াও আরও নানান জাতের আম আছে যা পাকলেও সবুজ থাকে, কিন্তু অত্যন্ত মিষ্টি হয়। গাছপাকা হলে এইসব আমের ত্বকে বিচ্ছিরি দাগ পড়ে। কেমিক্যাল দিয়ে পাকানো হলে আমের শরীর হয় মসৃণ ও সুন্দর।
৬। আম নাকের কাছে নিয়ে ভালো করে শুঁকে কিনুন। গাছ পাকা আম হলে অবশ্যই বোটার কাছে ঘ্রাণ থাকবে। কেমিক্যাল দেওয়া আম হলে কোনো গন্ধ থাকবে না, কিংবা বিচ্ছিরি বাজে গন্ধ থাকবে।

৭। আম মুখে দেওয়ার পর যদি দেখেন যে কোনো স্বাদ নেই কিংবা আমে টক বা মিষ্টি কোনো ভাব নেই, বুঝবেন সে আমে কেমিক্যাল দেওয়া।
৮। আম কেনা হলে কিছুক্ষণ রেখে দিন। এমন কোথাও রাখুন যেখানে বাতাস চলাচল করে না। গাছ পাকা আম হলে গন্ধে মৌ মৌ করে চারপাশ। ওষুধ দেওয়া আমে এ মিষ্টি গন্ধ হবেই না।
৯। আমের গায়ে সাধারণত এক ধরনের সাদা পাউডারের মতো থাকে। যা পানিতে বা ফরমালিনে চুবালে চলে যায় । এটাও খেয়াল রাখুন।
১০। কেমিক্যালে পাকানো আম হলুদ না হয়ে সাদার মত রং ধারণ করে। অনেক সময় ক্রেতার নজর কাড়তে ও আমের গায়ে থাকা দাগ দূর করতে এক ধরনের কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয়। কিছু আম আছে যে পাকলেও চামড়া সবুজ থাকে এরকম আম ক্রেতারা দেখেই কিনতে চায় না। তাই এরকম ক্রেতাদের ভুলের কারণেও কেমিক্যালের ব্যবহার হয়।


ভিটামিন এ, বি, সি, ই সমৃদ্ধ পাকা আম শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। ২০ ধরনের ভিটামিন ও মিনারেল রয়েছে এই ফলে। জেনে নিন পাকা আমের উপকারিতা সম্পর্কে।

মস্তিষ্ক ও স্মৃতিশক্তি উন্নত করে


আমাদের স্মৃতিশক্তি উন্নত করতে আম খুব ভালো ভূমিকা রাখে। এই ফলের গ্লুটামিক অ্যাসিড মস্তিষ্কের কোষগুলোকে উজ্জীবিত করে মনোযোগ বাড়িয়ে দেয়। তাই পরীক্ষার সময় ও মস্তিষ্কের চাপ যখন বেশি থাকে, তখন আম খাওয়ার পরামর্শ দেন পুষ্টিবিদরা।
হৃদরোগ ও আলঝেইমার প্রতিরোধ করে
আমে প্রচুর বিটা ক্যারোটিন থাকে, যা ভিটামিন এ এর উৎস। আর তাই এই ফল হৃদরোগ, ভুলে যাওয়া রোগ আলঝেইমার এবং পার্কিনসন্স ও আথ্রাইটিস প্রতিরোধ করে।
মিনারেলের ঘাটতি মেটায়
আমে প্রচুর পটাশিয়াম তাকে, তাই শারীরিক প্রশিক্ষণের পর শরীরে পটাশিয়াম ঘাটতি কমাতে আম বেশ উপকারী। এছাড়া প্রতিদিন দৌড়ঝাঁপে আমাদের শরীর থেকে যে লবণ বের হয়ে যায়, তার ঘাটতিও পূরণ করে আম।



ঠাণ্ডা ও ফ্লু দূর করে


অনেকেই আছেন ঠাণ্ডা বা ফ্লু দূর করতে যে প্রচুর  ভিটামিন সি প্রয়োজন হয়, তা গ্রহণ করতে পারেন না। এ অবস্থায় আম খেতে পারেন নিশ্চিন্তে। আমে ভিটামিন এ এবং ডি আছে প্রচুর পরিমাণে। তাই ঠাণ্ডা ও ফ্লু দূর করতে সক্ষম এটি।
দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে
আমে প্রচুর ভিটামিন এ থাকে বলে এই ফল দৃষ্টিশক্তি উন্নত করে ও রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে।
গর্ভবতীদের জন্য উপকারী
আমে প্রচুর ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম, ফসফরাস, ক্যালসিয়াম ও ফলিক অ্যাসিড থাকে, যা গর্ভবতীদের জন্য ও গর্ভে থাকা শিশুর জন্য বেশ উপকারী।
ক্যানসার প্রতিরোধ করে
আমে থাকা ভিটামিন এ, সি এবং ই শরীরে ফ্রি র‌্যাডিকেল বা ক্যানসার সৃষ্টিকারী উপাদানকে প্রতিরোধ করে।
হজমে সহায়ক
আমে প্রচুর আঁশ থাকে, তাই আমাদের হজম প্রক্রিয়াকে উন্নত করে এই ফল। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে, তাদের জন্য আম বেশ উপকারী।


সাবধানতা

  • আম অনেকের দেহে অ্যালার্জি সৃষ্টি করে।  

  • বেশি আম খেলে এটি ওজনের ওপর প্রভাব ফেলতে পারে।

  • যেহেতু আমে প্রচুর সুগার থাকে, তাই ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীদের আম খেতে হবে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী।  


তথ্যসূত্র: বাজ দিস ভাইরাল ডট কম

�হিমসাগরক্ষীরসাপাত�গোপালভোগ�ল্যাংড়া�আমরুপালি�মল্লিকা�সুরমা�ফজলি

বাংলাট্রিবিউন

FMAN-007

Please add your Shipping and payment information to this site.

chat Comments (0)
No customer reviews for the moment.

ABCD